পালিত হলো সাদাছড়ি দিবস

অপরাজেয় ডেস্কঃ “সাদাছড়ি বাড়ায় নিরাপত্তা, দেখায় পথ” এ প্রতিপাদ্যে গত ২৯ অক্টোবর দেশব্যাপী পালিত হয়ে গেলো বিশ্ব সাদাছড়ি দিবস।

যদিও বিশ্বব্যাপী ১৫ অক্টোবর দিবসটি পালিত হয়, এ বছর পবিত্র ঈদুল আযহা ও দুর্গাপূজা উপলক্ষে ১৪ ও ১৫ অক্টোবর সরকারি ছুটি থাকায় ২৯ অক্টোবর এ দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় এ উপলক্ষে সমাজসেবা অধিদফতর মিলনায়তনে আলোচনা সভা, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মধ্যে সাদাছড়ি বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন জেলায় কর্মরত সংগঠনগুলোও বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও নানান ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন করে।

দিবসটি দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ব্যক্তিসহ সকলের জন্য বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। নিরাপদে আত্মবিশ্বাসের সাথে এবং স্বাধীনভাবে মুক্ত চলাচলের জন্য দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের কাছে সাদাছড়ি একটি প্রতীক হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

উল্লেখ্য, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার সুরক্ষা, সামাজিক মর্যাদা এবং তাদের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে ১৯৬৪ সাল থেকে প্রতি বছর সারা বিশ্বে ১৫ অক্টোবরকে ‘বিশ্ব সাদাছড়ি নিরাপত্তা দিবস’ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। অপ্রতিবন্ধী মানুষের কাছে দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরতে এবং গণমাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী মানুষের ব্যাপারে গণসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ৭০ দশক থেকে বাংলাদেশেও এ দিবসটি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে পালিত হয়ে থাকে।

তবে অভিজ্ঞরা মনে করেন, সাদা ছড়ি ব্যবহারের জন্য উপর্যুপরি প্রশিক্ষণ নেয়া প্রয়োজন। যেমন একজন গাড়ি চালককে সবসময় সতর্ক থাকতে হয় তেমনি সাদা ছড়ি ব্যবহারকারিও সতর্ক না হলে যে কোন সময়ে দুঃর্ঘটনা ঘটতে পারে।

ইতোমধ্যে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মাসিক ভাতা, চাকুরির কোটা, স্থানীয় পর্যায়ে নির্বাচন করা, প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করা, যানবাহনে বিশেষ রেয়াতে চলাচলের আসন সংরক্ষণ, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যন্ত বিনা খরচায় লেখাপড়ার সুযোগ দান, ইশারা ভাষার প্রচলন ও ব্রেইল বই এর সহজলভ্যতা ইত্যাদির সুব্যবস্থা করে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জীবনে সম-অধিকারকে স্বীকৃতি দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার।