স্বপ্ন পূরণের যাত্রায় এক বছর

23

মুহাম্মদ মহিদুল ইসলাম

 

“অপরাজেয়” এর আজকের সংখ্যাটি বর্ষ-২, সংখ্যা-১। আমরা পেরিয়ে এলাম একটি বছর। প্রিয় পাঠক, গত একটি বছর ধরে আপনারা আমাদের সমর্থন ও সহযোগিতা দিয়ে আসছেন, স্বকৃতজ্ঞ শুভেচ্ছা গ্রহন করুন অপরাজেয় পরিবারের পক্ষ হতে।

বিগত এক বছরে প্রতিটি সংখ্যার কাজ করতে গিয়ে সব সময় আমরা চিন্তা করেছি, “অপরাজেয়” হবে প্রতিবন্ধী মানুষের মূখপত্র, সত্যিকারের অর্থেই তাদের সুখ-দুঃখ কথনের নিত্য সঙ্গী। প্রতি মূহুর্তে চেষ্টা থাকে প্রতিবন্ধী মানুষের চাহিদা আর আকাঙ্ক্ষা বুঝতে, গভীরভাবে বিবেচনা করি তাদের সমস্যাগুলো। আমরা প্রতিটি সংখ্যায় আপনাদের সু-সংবাদ দিতে চেষ্টা করি কিন্তু চারিদিকে হাজারো সমস্যার ভীড়ে সব সময় ভালো খবর দিতে পারি না। মনটা বিষাদে ভরে যায় তখন। এর মধ্যে কোনো ভালো ঘটনা বা ভালো উদ্যোগের খবর পেলে আমরা সেগুলোর উপর বিশেষ নজর দেই।

 

বিশ্বব্যাংক এবং বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যানুসারে মোট জনসংখ্যার ১৫ ভাগ জনগোষ্ঠী কোন না কোন প্রতিবন্ধিতার সম্মুখীন। কিন্তু এই বৃহৎ জনগোষ্ঠী নিয়ে নীতি নির্ধারণের নেই কোন মাথা ব্যথা। এমনকি বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমেও প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা উপেক্ষিত। এসব প্রবঞ্চনা ও উপেক্ষাকে পাশ কেটে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সুখ-দুঃখ, পাওয়া-না পাওয়ার মূখপত্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে “অপরাজেয়”।

“অপরাজেয়” প্রকাশের মাধ্যমে আমরা প্রতিবন্ধী মানুষের স্বপ্নগুলো রচনা করতে চেয়েছি। এবং আমরা অপ্রতিবন্ধী মানুষ তথা সমাজের মাঝে বিশ্বাস জাগিয়ে তুলতে চাই তারাও স্বপ্ন দেখে-দেখতে পারে। “অপরাজেয়” সেই জায়গা থেকে সরে যায়নি। বরং নতুন আশায় নতুন স্বপ্নে আরো বেশি করে প্রণোদিত হয়ে স্বপ্ন পূরণের যাত্রায় এগিয়ে যাচ্ছে। প্রতিবন্ধী মানুষ নানান সমস্যা সত্বেও এগিয়ে যাচ্ছে, তারা আগের তুলনায় অনেক সচেতন হচ্ছে, অভিভাবকরা সচেতন হচ্ছে। সর্বোপরি দেশের আপাময় জনগণ ও সরকার সচেতন হচ্ছে। বর্তমান সরকার প্রতিবন্ধী মানুষদের অধিকার বিষয়ে অপ্রতিবন্ধী জনগণ তথা সমাজে সচেতনতা সৃষ্টিতে কার্যকরী ভূমিকা রেখেছে। প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা আইন এবং স্নায়ুবিক প্রতিবন্ধিতাজনিত ব্যক্তিদের জন্য ট্রাস্ট আইন পাস হলো। এর আগে প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশনকে আলাদা অধিদফতরের রূপান্তরের সিদ্ধান্ত হয়েছে। প্রতিবন্ধী ক্রীড়া কমপ্লেক্স নির্মাণের সিদ্ধান্ত ব্যতিক্রমী তো বটেই যুগান্তকারীও বটে।

 

আমরা বিশ্বাস করি অদূর ভবিষ্যতে “প্রতিবন্ধী মানুষের সহায়ক ব্যবস্থা সম্বোলিত বাস যোগ্য বাংলাদেশ” অসম্ভব কোনো স্বপ্ন নয়। আমরা জানি এ পথ চলা সহজ নয়, দুর্গম। এই “দুর্গম গিরি কান্তার মরু” পেরিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে আপনাদের ভালোবাসা, আমাদের সাহস ও শক্তি যোগাবে। তাই আসুন, একটি সুন্দর স্বপ্নময় বাংলাদেশ গড়ে তুলতে প্রতিবন্ধী মানুষদের অবহেলা বা অবজ্ঞা না করে সমান কাতারে সামিল হয়ে একটি সুন্দর ও সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলি এবং প্রতিবন্ধী মানুষের স্বপ্ন পূরণের যাত্রাকে এগিয়ে নিয়ে যাই।