সরকার প্রদত্ত সেবা সমূহ থেকে; প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের অনুদান বঞ্চিত ডিপিও সংগঠনগুলো

7

 

অপরাজেয় প্রতিবেদক

 

জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের বেশিরভাগ অনুদান থেকে তৃণমূল পর্যায়ের প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সংগঠন (ডিপিও)গুলো বঞ্চিত হয়। ফাউন্ডেশনের বক্তব্য ডিপিওগুলো অনুদান চাইতে আসে না ফলে বেশিরভাগ অনুদান চলে যায় প্রতিবন্ধী মানুষদের নিয়ে কর্মরত এনজিও সংস্থাগুলোর কাছে।

 

এদিকে বিভিন্ন সূত্রমতে অনুদান গ্রহণের প্রক্রিয়া সম্পর্কে তৃণমূলের ডিপিওগুলো তেমন অবগত নয়। ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন ২ কোটি ১২ লক্ষ টাকা অনুদান দিয়েছে। তবে প্রতিবন্ধী মানুষের অভিযোগ রয়েছে এই অনুদানের বেশিরভাগই চলে যায় এনজিও সংস্থাগুলোতে।   ফাউন্ডেশনের উচ্চ পর্যায়ের নিভর্রযোগ্য একটি সূত্র এ প্রসঙ্গে বলেন, বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে এনজিওগুলো পরিচিতিটা বেশি পেয়ে যায় তাই অনুদানের ক্ষেত্রে তারা প্রাধান্য পাচ্ছে। তাছাড়া পত্রিকার বিজ্ঞাপন দেখে যারা আবেদন করেন, পরে ফাউন্ডেশনের কমিটি কর্তৃক যাচাই বাছাই প্রক্রিয়াতে অনেকে ঝরে যায় কার্যক্রম দেখাতে না পারার কারণে।

 

উক্ত সূত্রমতে ডিপিওগুলো সরাসরি এসে নিজের চাহিদা প্রকাশ করে অনুদান চাইলে এবং কার্যক্রম দেখাতে পারলে অনুদান প্রাপ্তিতে তারাই প্রাধান্য পাবে।

উল্লেখ্য, প্রতিবন্ধী মানুষদের দেশের সার্বিক উন্নয়ন কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন তাদের জন্য ঋণদান কর্মসূচি এবং তা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়। সংগঠনের কার্যক্রম প্রস্তাবনার ভিত্তিতে গ্রহণযোগ্য ক্ষেত্রে অনুদানের পরিমাণ বিবেচনা করে সর্বোচ্চ ৫,০০,০০০ (পাঁচ লক্ষ) এবং সর্বনিম্ন ১০,০০০ (দশ হাজার) টাকার অনুদান দেয়া হয়। এছাড়া ফাউন্ডেশনের আর্থিক যোগান সাপেক্ষে পরবর্তী বছরের অনুদানের পরিমাণ নির্ধারিত হয়।’

 

এই ঋণ বা অনুদান পাওয়ার জন্য নিম্নোক্ত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আবেদন করা যেতে পারে:

দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে নিবন্ধনকৃত প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সংস্থা/সংগঠন ফাউন্ডেশনের ৫০০ টাকা মূল্যের নির্ধারিত ফরমে একই প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বরাবর আবেদন ফরমটি পূরণ করে জমা দিতে পারবেন। আবেদন পত্রের সাথে প্রয়োজ্য ক্ষেত্রে নিম্ন তথ্যাবলি সংযুক্ত করতে হবেঃ

ক) প্রতিবন্ধী ব্যক্তি বিষয়ক কাযর্ক্রমের সাথে সংশ্লিষ্ট কমপক্ষে একটি সংস্থা বা সংগঠনের এবং উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তার সুপারিশ।

খ) রেজিষ্ট্রেশন এর সত্যায়িত কপি।

গ) বিগত এক (০১) বছরের বার্ষিক প্রতিবেদন।

ঘ) বিগত এক (০১) বছরের নিরীক্ষা প্রতিবেদনের কপি।