সাংস্কৃতিক চর্চায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সংগঠন সুর সঙ্গী চক্র

22

পৃথিবীতে প্রত্যেক মানুষই জন্ম নেয় কোনো না কোনো প্রতিভা নিয়ে। প্রতিবন্ধী মানুষের মধ্যে তার ব্যতিক্রম রয়েছে  এমনটা ভাবা ঠিক নয়। জন্মগত হোক কিংবা পরবর্তী সময়ে প্রতিবন্ধিতার শিকার হলেও তাদের মধ্যে নানা ধরনের প্রতিভার অধিকারী ব্যক্তি রয়েছেন, যদিও সমাজ এই মেধা ও যোগ্যতার মূল্যায়ন করতে চায় না। মূলধারার সাংস্কৃতিক চর্চায় আমাদের দেশে প্রতিবন্ধী মানুষের অবস্থান অনেকটাই পিছিয়ে। এই অবস্থার উত্তরণে প্রতিবন্ধী মানুষের সাংস্কৃতিক সাধনায় সহায়ক হতে গঠিত হয়েছে সুর সঙ্গী চক্র নামের একটি প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সংগঠন।

 

রাজধানীর শ্যামলীর আদাবরে প্রতিবন্ধী নাগরিক সংগঠনের পরিষদ (পিএনএসপি) মিলনায়তনে গত ২৭ আগস্ট ২০১৬ বেশ কয়েকজন প্রতিবন্ধী মানুষের উদ্যোগে ব্যতিক্রমী এই সংগঠনের যাত্রা শুরু হয়। নিজেদের সংগীত প্রতিভা বিকাশের লক্ষ্যে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত প্রতিবন্ধী মানুষের উপস্থিতিতে সংগঠনের প্রথম সভায় একটি অন্তর্বর্তীকালীন কমিটি গঠন করা হয়। যেখানে ত্রাণ ও দুর্যোগবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভাপতি আলী আহসানকে এই কমিটির সভাপতি এবং দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সঙ্গীত শিল্পী শাহাবউদ্দিন আহমেদ দোলনকে সাধারণ স¤পাদক নির্বাচিত করা হয়। কমিটির অন্যান্য সদস্যের মধ্যে আরও রয়েছেন আক্তার হোসেন, মোখলেছুর রহমান মুকুল, শিরিন আক্তার, শাহরিয়ার সাহাব পিংকী, মিলন হোসেন, শরিফুল ইসলাম, রবিউল করীম, মীর আজিজুল হক। এ ছাড়া সহযোগী সদস্য হিসেবে রয়েছেন মনোয়ারা বেগম, আলম দেওয়ান ও মো. সোহেল মিয়া।

 

সুর সঙ্গী চক্র সংগঠনের মূল উদ্দেশ্য হলো, প্রতিবন্ধী শিল্পীরা যেন তাদের প্রতিভা প্রকাশ করতে পারে। এর বাস্তবায়নের অভীষ্টে সংগঠনটি প্রতিভাবান প্রতিবন্ধী শিল্পীদের দ্বারা পরিচালনা করার প্রত্যয় নেওয়া হয় এই সভায়। সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বাংলাদেশের সব ধরনের প্রতিভাবান প্রতিবন্ধী শিল্পীকে খুঁজে বের করে তাদের প্রতিভা বিকাশের সুযোগ করে দেওয়ার। এর মাধ্যমে যেন প্রতিবন্ধী মানুষের আর্থিক ও সামাজিক মর্যাদা লাভ হয়, সেটিও লক্ষ রাখা হবে। মূলত সুর সঙ্গী চক্র সারা দেশের প্রতিবন্ধী শিল্পীদের জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করবে এই অঙ্গীকার ব্যক্ত করা হয় সভায়।