পরাধীনতার শৃঙ্খলে অধীনস্থ তুমি

43

তাসনিন সুলতানা, ঢাকা

 

তুমি প্রতিবন্ধী মানুষ! মৃদু গুরুতর যা-ই হোক না কেন, তুমি প্রতিবন্ধী মানুষ! উচ্চশিক্ষা-সামাজিক প্রতিষ্ঠা তথা মর্যাদাপূর্ণ জীবনের স্বপ্ন তোমার জন্য নয়। বড় হয়ে ‘কী হতে চাও’ এই রচনা লেখার দুঃসাহসিকতা দেখিয়ো না।

তোমার কোনো চাহিদা থাকতে নেই। বন্ধুতার প্রয়োজন নেই। যৌন আকাংক্ষা, পরিবার গঠন, বিয়ে, সামাজিকতা এসবে তোমার একেবারেই অধিকার নেই। কোনো ধর্ম, রাষ্ট্র কোথাও নেই এ ধরনের বক্তব্য!

 

পরিবার রেখে যাবে সম্পত্তি, যা দিয়ে হবে জীবনধারণ। পৈতৃক সম্পত্তি নেই, তাতে কী! বেসরকারি সংস্থার তো অভাব নেই। এনজিওদের ট্রেনিং ব্যবসাও চলছে সমান তালে। জমকালো দিবসের ঝলকানিতে কেউ না কেউ ডাকবে নিশ্চয়ই। গাড়িভাড়া আর পেটপুরে খাওয়া সঙ্গে কিছু পকেটমানিও জমবে। সেই সঙ্গে বড় বড় মানুষ যেচে পড়ে এসে তোমার সঙ্গে ছবি যে তুলবে! তুমি কতই না গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি, তোমার সঙ্গে তাদের ছবি না থাকলে ব্যবসা জমবে কীভাবে! তুমি ভাই প্রতিবন্ধী মানুষ, আইনের কচকচানি আর অধিকারের বুলি সবটা জেনে হবে কী তোমার। এত শত পড়ার ও বোঝার দরকারই নেই।

 

আপাতত অযোগ্য-অথর্ব তুমি পত্রিকা, ফেসবুকে শুধু ছবি দিয়েই সুখে থাকো।

স্বাধীন দেশে পরাধীনতার শৃঙ্খলে মাথা নত করে অধীনস্থ হয়ে থাকাই তোমার জন্য শ্রেয়।