বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মানুষদের নিয়ে নতুন ব্যবসা

7

এম.এইচ.এম. ওয়াসিউজ্জামান, মাগুরা : 

 

প্রতিবন্ধী মানুষের সাথে বৈষম্য নতুন কিছু নয়। সেই বৈষম্য পেয়েছে নতুন মাত্রা। প্রতিবন্ধী মানুষের পরিবারে গঠন বাধার সম্মুখীন হচ্ছে কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে।

 

এদেশে বিভিন্ন ধরণের প্রতিবন্ধী মানুষ রয়েছে। তাদের মধ্যে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মানুষের সংখ্যা কম নয়। তথাদি সামাজিক অসচেতনতাবসত তারা বিভিন্ন মানবিক ও রাষ্ট্রীয় অধিকার থেকে বঞ্চিত। বৃদ্ধিবৃত্তিক স্বকীয়তা না থাকায় সামান্য সঙ্গ দিলেই তাদের নৈকট্য লাভ করা সম্ভব। এতে সহজেই এরা স্বার্থপর, হীনমণ্য ব্যক্তিদের কুমতলবের শিকারে পরিণত হয়। বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নারীরা ধর্ষণের শিকার হয়। এর ওপর শুরু হয়েছে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নারী পুরুষের জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির নামে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার নতুন আরেক ব্যবসা।

 

মাগুরা জেলার মোহাম্মদপুর থানার প্রত্যন্ত গ্রাম জোকায় বসবাস করেন মোহাম্মদ হাসান। বুদ্ধি প্রতিবন্ধী হাসানের প্রতিবেশি শুকুর আলী তাকে ভুলিয়ে ভালিয়ে নিয়ে যায় জেলা স্বাস্থকেন্দ্রে। উল্লেখ্য জেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির প্রচার ও প্রসারে এ পদ্ধতি গ্রহনকারীকে নগদ অর্থ প্রদান করা হয়। বুদ্ধি প্রতিবন্ধী হাসানের অভিভাবক হিসেবে নাম লিখিয়ে শুকুর আলী এ অর্থ গ্রহণ করে। জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণের পর থেকে মাঝে মাঝেই প্রচন্ড যৌনাঙ্গ প্রদাহ হয় হাসানের। এলাকায় শুধু হাসান নয় তার মত আরও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মানুষ ক্ষুদ্র স্বার্থলোভী শেণীর চক্রান্তে পরিবার গঠনের ক্ষমতা হারাচ্ছেন।