মেঘ রোদ্দুরের স্বপ্নে

10

বৃষ্টি চৌধুরী

 

-এই যে শুনছেন?

-উম্ম্…

-উহুঁ, এসব উম-আম চলবে না, একটু উঠুন তো

-হুম্ম্, এই তো আরেকটু…

-বড্ড জ্বালান! উঠুন, না হলে পানিতে ভিজিয়ে দেবো বলছি

-উফ্…এই রাত ভোরে কী শুরু করলেন!

-যা ইচ্ছা তাই…এক্ষুনি উঠুন বলছি। দেখুন না,

কী অদ্ভুত সুন্দর মেঘরঙা আকাশ! বারান্দায় যাবো

-গেলেই হয়। আমায় নিয়ে কেন টানাটানি!

-আহ্হা, আসুন না! প্লিজ… প্লিজ প্লিজ প্লিজ প্লি-ই-ই-জ

-সব সময় আহ্লাদিপনা ভাল্লাগে না, হুম্ম্।।

-এঃ! আপনার ভালো লাগার থোড়াই কেয়ার করি আমি

-আচ্ছা বাবা, আগে একটু উপুড় হয়ে ওম নেই…

-অত শত বুঝি না। বলেছি যেতে হবে, এক্ষুনিই যেতে হবে।

ব্যস! কথা শেষ। ফাইনাল।

 

==================================

 

-আজ আমার আকাশ মেঘরঙা শাড়িতে জড়িয়েছে নিজেকে। আমিও…

দু’হাত ভর্তি চুড়ি আর ছোট্ট টিপ, আচ্ছা কী টিপ পরি, হুম্ম্?

-যা ইচ্ছে…

-আচ্ছা, এই তবে কথা

-কী?!

-বলুন তবে বৃষ্টির রিমঝিম নাকি স্পর্শ, কোনটি বেশি মধুময়

-এই নিয়ে হাজারের ওপর হতে চললো আর কতো?!!

-আরো হাজার বার। লক্ষ বার।

অযুত নিযুত আরো আরো আরো…আরে আরে এসব কী হচ্ছে

-কেমন লাগছে এখন??

-উম্ম্… বর্ণনাতীত

-উহুঁ…শুনবো।।

-ইশ্! নিজে যে এখন আহ্লাদি শুরু করেছেন

-করবো।।

-এঃ! শখ কত্তো

-হু শখ, তো!

-উম্ম্ন্না… সরুন তো

-উহুঁ যাবো না

-আহ্হা যান বলছি, যান

-হু, তাই-ই তো…

-অসভ্য

 

================================

 

-আসছি তো বাবা…

-হুম্ম্, দেরি হচ্ছে। জলদি, হাতে ওটা কী?

-আহ্! এতো প্রশ্ন করে রে…

আমাকে ধরুন তো, একা কীভাবে রিকশায় উঠি!

-আমার হাত ধরে আর কতো…নিজেরও তো কিছু শিখতে হবে।

-লেকচার বন্ধ করে এটা ধরুন তো দেখি…

-এমা! এসব কী হচ্ছে এখানে!!

-মোমবাতিটা কেমন মায়াবী না! অনেক ঘুরে তবেই এটা পেয়েছি

-এই পিচ্চি কেক আপনি বানিয়েছেন!

-এই রূপোলী ছুরিটাও আমার খুব পছন্দ…

-এখানে পিচ্চি পিচ্চি লেখাগুলোও আপনার!!

-মোমটা যে নিভে যাচ্ছে, দু’হাতে বাতাস আগলে রাখুন…

-এই কান্ড জীবনে দেখিনি!!

-এই যে, মাত্র দেখলেন…

এখন বকর বকর বন্ধ করে মোমবাতিটা নেভান তো!

-এই চলন্ত রিকশায়!!!

-চোখ বেরিয়ে যাবে এমন করলে…

 

=================================

 

-কী নির্জন আজকের দুপুরটা, তাই না!

-গনগনে রোদ্দুরের আঁচ দেখে কে বলবে

সক্কালবেলায় আকাশটা কাঁপিয়ে গেলো!

-স্রষ্টা ইচ্ছে করেই করেছেন এমন।

-মানে?!

-আজকের দুপুরটা শুধু আপনার!

-উহুঁ…আমাদের!

-হু…

-কই যাচ্ছি আমরা?

-পাহাড় আর নদী যেখানে মিশেছে..সেই প্রকৃতির কাছে।

-আজ সমস্তই তবে আমার…

-আজ আমরা পাহাড় হবো।

-উহুঁ, আজ আমি রোদ্দুর হবো…

সেই রোদ্দুরে আমরা পাহাড় হবো।

-তবে আমি রোদ্দুরের ছায়া হবো। মেঘ…

-মেঘের মায়ায় আমি ওম নেবো

-রোদ্দুরের প্রখর উত্তাপেই তো মেঘের জন্ম!

-হুম্ম্, মেঘ মানে রোদ্দুর। রোদ্দুর মানেই মেঘ।

-একের জন্যই অপরের বেঁচে থাকা।

-মহাকাশের বুকজুড়ে মেঘ-রোদ্দুরের লুকোচুরি খেলা।