সচেতন হই

 

আমরা প্রত্যেকে জীবনকে উপভোগ করতে চাই। অন্যের জন্য কিছু করেও আনন্দ পাওয়া যায়। সেটা হতে পারে কোন দরিদ্র মানুষ, হতে পারে পথ শিশু, হতে পারে প্রতিবন্ধী মানুষ।

প্রতিটি মানুষেরই জীবনটাকে উপভোগ করে বেঁচে থাকার অধিকার আছে। তবে কেন তারা হবে বঞ্চিত!

 

আমরা যদি সবাই প্রতিবন্ধী মানুষের আশেপাশের বা তাদের পরিবারের চাহিদা সম্পর্কে জানার চেষ্টা করি এবং তা পূরণে সাহায্য করি। তাকে পরিবারে, চার দেয়ালের মাঝে লুকিয়ে না রেখে সবার সাথে মিশতে দেই, শিক্ষা তথা স্বাভাবিক জীবন যাপনের সুযোগ করে দেই, যেখানে সেখানে তাদের অবাধে মুক্ত চলাচল নিশ্চিত করি, তাহলে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে এদেশে সত্যিকারের পরিবর্তন আসবে। কিন্তু ‘মানুষ’ হিসেবে পরিচয় দিতে হবে।

প্রতিবন্ধী মানুষের জীবনমান উন্নয়নে এবং তাদের সহায়ক ব্যবস্থা সম্বোলিত বাসযোগ্য বাংলাদেশ গড়তে আমাদের দেশের প্রতিটি নাগরিকের কিছু দায়িত্ববোধ রয়েছে।

 

সব কিছু সরকারের আশায় বসে না থেকে নিজের নিজের অবস্থান থেকে নিজ নাগরিক দায়িত্বগুলো পালন করা দরকার। যেমন-

  •  ঘরে প্রতিবন্ধী মানুষ থাকুক বা না থাকুক, জাতীয় ইমারত নির্মাণ বিধিমালা অনুযায়ী ভবনকে প্রবেশগম্য করে তৈরি করা। [ যে কোন সময়ে যে কেউ প্রতিবন্ধিতার সম্মুখীন হতে পারে ]
  •    শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর শিক্ষা সহায়ক পরিবেশ তৈরি করা।
  •   ঘরের অ-প্রতিবন্ধী শিশুটির সাথে সাথে প্রতিবন্ধী শিশুটিকেও স্কুলে ভর্তির উদ্যোগ নেয়া।
  •   নিজ নিজ বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে প্রতিবন্ধী মানুষকে চাকরি দেয়ার উদ্যোগ গ্রহণ।
  •   নিজের সচেতনতা আশেপাশের সকলের মাঝে ছড়িয়ে দেয়া।

 

সর্বশেষ

বিশেষায়িত বিদ্যালয়ে শিক্ষা উপকরণ সংকট; নানামুখী সমস্যায় প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা

অপরাজেয় প্রতিবেদক পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা, সঠিক রঙের ব্যবহার, সহায়ক উপকরণ, ইন্ডিকেটর বা সঠিক দিকনির্দেশনা এবং কম্পিউটার প্রশিক্ষণে সহায়ক সফটওয়্যার ও অডিও বইয়ের অভাবসহ নানামুখী সমস্যার কারণে সাধারণ...

মাসিক আর্কাইভ

Translate | অনুবাদ