যৌন নির্যাতনের পর প্রতিবন্ধী কিশোরীর পরিবারকে হয়রানি

29

ফারজানা রহমান দিশা (ময়মনসিংহ প্রতিনিধি)ঃ ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলায় বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী এক কিশোরীকে (১৫) যৌন নির্যাতনের পর তার পরিবারকে মামলা তুলে নেবার জন্যে হুমকি এবং তাদের বাড়িঘরে হামলা ভাংচুরসহ নানা হয়রানি করা হচ্ছে।

 

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, গত ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৩, বৃহস্পতিবার নান্দাইল উপজেলার খারুয়া ইউনিয়নের বীর বাঘাড়ি গ্রামের মিলন মিয়া (২৫) পাশবিক এ ঘটনাটি ঘটায়। আনুমানিক রাত সাড়ে ১০ টার দিকে মেয়েটি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের পেছনে গেলে মিলন মিয়া তার মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক পাশের নিরিবিলি স্থানে নিয়ে যায়। মেয়ে অনেকক্ষণ ফিরে না আসায় মায়ের দুশ্চিন্তা বেড়ে যায়। তিনি আশেপাশে খুঁজতে গিয়ে এক পর্যায়ে মেয়ের উপর পাশবিক নির্যাতন চলতে দেখে ফেলেন। সে সময় মায়ের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন চলে এলে মিলন মিয়া পালিয়ে যায়। দ্রুত মেয়েটিকে নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এ ঘটনায়, কিশোরীর মা বাদী হয়ে গত ২১ ডিসেম্বর, শনিবার রাতে মিলন মিয়াকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেছেন। এ প্রতিবেদক মায়ের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি অত্যন্ত ক্ষোভের সাথে জানান, মামলা তুলে নেওয়ার জন্য আমাদের টাকা পয়সার লোভ দেখিয়ে, হামলা ভাংচুর করে ঘটনাটি ধামা – চাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে আসামী পরিবার। এলাকাবাসীর কাছে জানা যায়, এ ঘটনার রেশ ধরে গত শুক্রবার মিলন মিয়া ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের বাড়ি ঘরে হামলা করে। তবে শনিবার মামলা করার পর থেকে আসামী পলাতক রয়েছে।

 

নান্দাইল মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম ফরাজী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন, পুলিশ আসামীকে গ্রেফতারের জন্য সব রকমের চেষ্টা করছে। ঘটনার পর থেকে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।