এ আঁধারের শেষ কোথায় ?

26

 

২০০৮ সালে বাংলাদেশ গ্যাস ফিল্ড কোম্পানি লিমিটেডের ‘কম্পিউটার অপারেটর’ পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখে নিয়োগের জন্য আবেদন করেছিলাম আমি। অতঃপর প্রায় তিন বৎসর পর ২০১১ সালের ৮ এপ্রিলে ঢাকায় আইবিএ-র লিখিত পরীক্ষার ফলাফলে যোগ্য বিবেচিত হওয়ায় সে বছরই ২৩ সেপ্টেম্বর মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ আসে। দীর্ঘদিন অপেক্ষার পর অবশেষে প্রতিবন্ধী কোটায় প্রাক-নিয়োগ ‘শারীরিক ও মানসিক উপযুক্ততা যাচাই’ পরীক্ষার জন্য উক্ত কোম্পানি ২০১২ সালের ২৩ থেকে ২৬ এপ্রিলের মধ্যে উপস্থিত হতে নির্দেশ দেয়। এদিকে যথাসময়ে উপস্থিত হবার পর জানানো হয় এই মেডিকেল ফিটনেস পরীক্ষা সম্পন্ন হলেই নিয়োগ সংক্রান্ত যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন তারা। কিন্তু মেডিকেল বোর্ডের সকল পরীক্ষা সম্পন্ন করতে না করতেই সেসময় চাকরি না পাওয়া কতিপয় পদপ্রার্থী ‘প্রয়োজনের তুলনায় বেশি লোক নিয়োগ এবং জেলা কোটা সংরক্ষণ না করা’ ইত্যাদি নানান কথা তুলে আমার নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বাধা দেয়। আর একারণেই যোগ্যতা এবং ‘প্রতিবন্ধী’ কোটায় স্থান পেয়েও আমি আজও চাকরি বঞ্চিত।

 

আমার দুর্ভাগ্য, মেসেজ এবং ফোন কলের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেও তাকে পাই নি। কর্তৃপক্ষের অন্যায় আচরণে অন্যায়ের আঁধারে ঢেকে গিয়েছে আমার জীবন। আজও বেকার আমি! কিন্তু অপরাধটা কোথায় আমার? আর কোথায় গেলে পাব ন্যায় বিচার? জীবন যুদ্ধে এভাবেই হারতে হলে, এই আঁধারের শেষ কোথায়?

 

এ এইচ এম নাহিদ কবীর

৩৬৪ কসবা কুটির, তৃতীয় তলা, কান্দিপাড়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া